সাভারে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান ॥ ১৮”শ বাসাবাড়ীর অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন

আব্দুল্লাহ আল মারুফ, সাভার থেকে ঃ ৩০ অক্টোবর বুধবার সাভার উপজেলাধীন আশুলিয়া ইউপির কাঠগড়া আমতলা ও নিক্কন হাউজিং এলাকায় অভিযান চালিয়ে প্রায় ৩ কিলোমিটার ব্যাপী বিস্তৃত ১৮’শ বাসা বাড়ীর অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। এ সময় অবৈধ গ্যাস সংযোগের কাজে ব্যবহৃত বিপুল পরিমান রাইজার ও পাইপ জব্দ করা হয়।

বুধবার সারাদিন এ অভিযানের নেতৃত্ব দেন আশুলিয়া রাজস্ব জোনের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাজওয়ার আকরাম সাকাপি ইবনে সাজ্জাদ।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাজওয়ার আকরাম সাকাপি ইবনে সাজ্জাদ জানান, বুধবার আশুলিয়ার কাঠগড়া আমতলা এলাকায় সকাল থেকে শুরু হওয়া অভিযানে আমরা আনুমানিক এক হাজার আটশত বাসা বাড়ীতে অবৈধ ভাবে স্থাপন করা গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছি।

তিনি আরও জানান, অবৈধ গ্যাস সংযোগ গ্রহনকারী এবং সংযোগ প্রদানে সহযোগীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনী ব্যবস্থা গ্রহনের প্রস্তুতি চলছে।

এ ব্যাপারে সাভার তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড (জোবিঅ) এর ব্যবস্থাপক, প্রকৌশলী আবু সাদাত মোঃ সায়েম জানান, বুধবার সকাল থেকে শুরু হওয়া অভিযানে আশুলিয়ার ১নং ওয়ার্ডের নিক্কন হাউজিং ও আমতলা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে অবৈধ সংযোগগুলি বিচ্ছিন্ন করেছি। এখানে অবৈধ সংযোগকারীরা আমাদের মূল ৪ ইঞ্চি গ্যাসের সরবরাহ লাইন থেকে অবৈধভাবে ২ ইঞ্চি ব্যাসের সংযোগ পাইপ ব্যবহার করে প্রায় ৩ কিলোমিটারব্যাপী অবৈধ সংযোগ প্রদান করেছে। আমরা সেগুলি তুলে ফেলেছি।

তিনি আরও জানান, একই জায়গায় আমরা এই মাসের ২৪ তারিখে অভিযান পরিচালনা করেছিলাম, তবে ওই দিন সময় স্বল্পতার কারনে সম্পূর্ণ অবৈধ লাইন তুলে ফেলতে ব্যর্থ হই। এই এক সপ্তাহের ব্যবধানে আবারও নতুন করে পাইপ ব্যবহার করে সংযোগ নেয়া হয়েছে। যা আজ আমরা জব্দ করেছি। শুধুমাত্র বাসা বাড়ীতেই নয় ড্রেস কোয়ালিটি ওয়াশিং প্লান্ট নামের একটি কারখানায় ও অবৈধভাবে শিল্প সংযোগ দেয়া হয়েছে। আমরা ওই সংযোগ বিচ্ছিন্ন সহ সংযোগের কাজে ব্যবহৃত পাইপগুলি জব্দ করে কতৃপক্ষের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এর নিকট আবেদন করেছি।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে প্রকৌশলী আবু সাদাত মোঃ সায়েম জানান, আদালত পরিচালনা ও শাস্তি দেবার ক্ষমতা তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড এর নেই। আমাদের সুপারিসক্রমে ইতিপুর্বে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট এর নেতৃত্বে একাধিক অভিযান পরিচালনা ও আর্থিক জরিমানা সহ শাস্তি দেয়া হয়েছে।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ১নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য মোহাম্মদ আলী জানান, রাতের অন্ধকারে এসব লাইন নেয়া হয়। যদি প্রশাসন, আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং গ্যাস কর্তৃপক্ষ সহায়তা করে আমার পক্ষ থেকে তাদেরকে এ ব্যাপারে সর্বোচ্চ সহায়তা প্রদান করবো।
প্রসঙ্গত, অভিযান চলাকালে কোনো প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক এমদাদ এর নেতৃত্বে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন ছিলো।

অভিযানে অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- সাভার তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড এর উপ-ব্যবস্থাপক আমিরুল ইসলাম, মহিউদ্দিন, সহ-ব্যবস্থাপক আব্দুল মান্নান, ইদ্রিস আলী, সাকিব বিন আব্দুল হান্নান, সহকারী-কর্মকর্তা এহসানুল হক সহ তিতাসের কারিগরি টিমের শ্রমিকবৃন্দ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।