সারাদেশে একের পর এক বেড়েই চলছে ধর্ষণের ঘটনা। ধর্ষণের হাত থেকে রেহাই পাচ্ছে না শিশুরাও।

সারাদেশে একের পর এক বেড়েই চলছে ধর্ষণের ঘটনা। ধর্ষণের হাত থেকে রেহাই পাচ্ছে না শিশুরাও। ধর্ষণকে যেন অপরাধই মনে হচ্ছে না লম্পটদের কাছে । লম্পটদের লালসার শিকারের সংখ্যা বেড়েই যাচ্ছে দিন দিন । এবার অল্পের জন্য ধর্ষণের হাত থেকে রক্ষা পেলেন ১০ম শ্রেণীর এক স্কুল ছাত্রী।

জানা গেছে, দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে স্কুল ছাত্রীকে জাপটে ধরে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে লম্পট যুববকে স্থানীয় জনতা আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে। গত ১৩ অক্টোবর শনিবার দুপুর ২টায় উপজেলার আউলিপুকুর ইউনিয়নের মিত্রবাটি ভাঙ্গিাচিরা নামক এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটেছে।

সরেজমিনে ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার উত্তর ভোলানাথপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির টেষ্ট পরীক্ষার্থী ছাত্রী কৃষি পরীক্ষা শেষে বাড়ি ফেরার পথে স্কুল থেকে আনুমানিক আড়াই কিলোমিটার দুরে বাড়ির কাছাকাছি পৌঁছামাত্র উত্তর ভোলানাথপুর গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে ট্রাক্টর শ্রমিক ও ১ সন্তানের জনক নওশাদ আলী (২২) ও একই চেতু মন্ডলের ছেলে মমিনুল ইসলাম (২৪) ছাত্রীটিকে পথরোধ করে এবং জাপটে ধরে।

এক পর্যায়ে স্কুলছাত্রী পার্শ্ববর্তী ধান ক্ষেতে লাফিয়ে পড়লে লম্পট নওশাদ তাকে মারধর করে ধান ক্ষেতেই ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। পরে স্কুল ছাত্রী চিৎকার শুরু করায় এলাকাবাসী এগিয়ে এসে লম্পট নওশাদকে আটক করলে সহযোগি মমিনুল ইসলাম পালিয়ে যায়।

স্থানীয় জনতা চিরিরবন্দর থানা পুলিশকে সংবাদ দিলে থানার অফিসার ইনচার্জ হারেসুল ইসলাম দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে ছাত্রীকে উদ্ধার করে চিরিরবন্দর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে ভর্তি করে ও আটককৃত নওশাদকে থানায় নিয়ে যায়।

এ ঘটনার ব্যাপারে থানার অফিসার ইনচার্জ হারেসুল ইসলাম বলেন,পলাতক মমিনুলকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। থানায় এখনো লিখিত অভিযোগ দেয়নি কেউ ।অভিযোগ পেলে অবশ্যই আইনগত ব্যাবস্থা নেয়া হবে ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।