“ফুলওয়ালী” – তারেক মাহমুদ

নিজের জন্মদিনটা মনে রাখতে না পারলেও এ প্রজন্ম ভালোবাসা দিবসটা   ঠিকই মনে রাখে।

 

দিনটার কত তাৎপর্য্য, কত গুরুত্ব!

 

পার্কের নোংড়া বেঞ্চিতে সারা বছরজুড়ে জমতে থাকা ধুলোগুলোকে ধুয়ে মুছে একেবারে চকচকে রঙরঙা করে রাখা হয়।

 

সাড়াবছর ব্যস্ত রাস্তায় ট্রাফিক জ্যামের মধ্যে এ গাড়ি, ও গাড়ির চিপা দিয়ে হাতে ফুলের মালা নিয়ে পিচ্চি মেয়েটাকে গাড়ির কাছে আসতে দেখে গাড়ির গ্লাস লাগিয়ে ফেলা ভদ্রলোকটিও এই দিনটিতে ফুল নিতে ঐ পিচ্ছি মেয়েটিকে ডেকে ডেকে দিশেহারা হয়ে যায়।

 

আজ পিচ্চি মেয়েটি ব্যস্ত, খুওওওব ব্যস্ত।

 

আজকে আর আপাতত না খেয়ে দিনটা পার করতে হবে না,

 

ভালোই আমদানী হচ্ছে।

 

যে ফুলটা সাহেবদের পায়ে ধরেও ১০ টাকা বিক্রি করতে পারি নি, আজ সেই ফুলটিই সাহেবরা পায়ে ধরে নিয়ে যাচ্ছে ৫০ টাকায়।

 

পিচ্চি মেয়েটা শুনেছে আজ নাকি ভালোবাসা দিবস।

 

ভালোবাসা দিবসে ফুল বিক্রি কেন বেড়ে যায় সেটা সে বোঝে না,

 

শুধু বোঝে, ফুল বিক্রি বেড়ে গেলে, পাতের ভাতটাও বেড়ে যাবে।

 

পিচ্চি মেয়েটা ভালোবাসা কি? সেটা বোঝে না।

 

আজকে কামাই করতে না পারলে, আম্মা আর ছোট ভাইটা যে না খেয়ে থাকবে, সেটা বোঝে ঠিকই।

 

 

 

ম্যাডামকে স্যার ফুল কিনে দিলে, ম্যাডাম কেন খুশী হয় সেটা এই ফুল ওয়ালী পিচ্চি মেয়েটা বোঝে না।

 

তবে স্যার ফুল কিনলে নিজের রাতের খাবারের নিশ্চয়তাটা বেড়ে যায়, মায়ের ঔষধ কেনার নিশ্চয়তাটা যে বেড়ে যায় সেটা ঠিকই বোঝে।

 

হাটু গেড়ে হাতে ফুল নিয়ে প্রেমিকার দিকে হাত বাড়িয়ে ফুল এগিয়ে দিলে, প্রেমিকা কেন খুশীতে গদগদ হয়ে যায়, সেটা এই পিচ্চি ফুলওয়ালী মেয়েটা জানে না।

 

তবে সেই ফুলটা বিক্রি করা টাকা দিয়ে যে ছোট ভাইটার জন্য চকলেট কিনা যাবে সেটা এই ফুলওয়ালী পিচ্চিটা জানে।

 

কাব্যগন্থ মুখস্থ করে প্রেমিকার চোখে চোখ রেখে ভালোবাসার সংজ্ঞার অর্থ এই পিচ্চি ফুলওয়ালী বোঝে না।

 

আধা কেজি চালের অপেক্ষায় যে বাসায় মা, আর ছোট ভাইটি বসে আছে, সেটা এই ফুলওয়ালী ঠিক বুঝতে পারে।

 

৫ টা লাল গোলাপের মাঝখানে একটা গাদা ফুল থাকলে বেশ মানাতো, প্রেমিকার এমন বক্তব্য এই ফুলওয়ালী মেয়েটা বোঝে না,

 

তবে, সুপার শপের দোকান থেকে ফুল না কিনে যদি ভাইয়াটি আমার কাছ থেকে ফুল নিতো, তবে ছোটভাইটার জন্য হয়তো কিছু কিনে নিতে পারতাম সেই টাকা দিয়ে। এমন উপলব্ধি সেই ফুলওয়ালি মেয়েটি ঠিকই করতে পারে।

 

 

 

আপনার প্রেমিকার প্রতি ভালোবাসার মূল্য ফুলওয়ালি মেয়েটা বোঝে না,

 

তবে বিশ্বাস করুন, আপনার হাতে থাকা ফুলটির মূল্য এই ফুলওয়ালি মেয়েটার কাছে অনেক দামী।

 

হয়তো আপনার ভালোবাসার সমানই।

 

আপনি হয়তো প্রেমিকার সাথে ব্রেক আপ হয়েছে বলে ভালোবাসা দিবস, বা ১৪ ই ফেব্রুয়ারিকে আর পেতে চান না,

 

কিন্তু বিশ্বাস করুন,

 

ঐ ফুলওয়ালী মেয়েটা চায়, প্রতিদিন আসুক এই ভালোবাসা দিবস।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।