ইজতেমা মাঠে হামলা ও হতাহতের ঘটনার প্রতিবাদে নরসিংদীতে বিক্ষোভ

ইজতেমা মাঠে হামলা ও হতাহতের ঘটনার প্রতিবাদে নরসিংদীতে বিক্ষোভ

­
টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমা মাঠে ভারতের সাদপন্থীদের হামলা ও হতাহতের ঘটনায় প্রতিবাদ জানিয়ে সোমবার নরসিংদী জেলা শহরে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে নরসিংদী জেলা কওমি মাদরাসা পরিষদ ও ইমাম পরিষদ। গত রবিবার সন্ধ্যায় নরসিংদী জেলার সাটিরপাড়া মাঠে আয়োজিত মহাসম্মেলনে টঙ্গীর ঘটনার নিন্দা জানিয়ে প্রতিবাদ জানানোর পর সোমবার হাজার হাজার আলেম-ওলামা ছাত্র-শিক্ষক ও ধর্মপ্রাণ মানুষ ওই বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। বিক্ষোভে নরসিংদী জেলা কওমি মাদরাসা পরিষদের সভাপতি হাফেজ মাওলানা শওকত হোসাইন সরকার ও মহাসচিব আল্লামা ইসমাঈল নুরপুরী নেতৃত্ব দেন। মহাসম্মেলনে ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী সোমবার হাজার হাজার ধর্মপ্রাণ মানুষ আলেম-ওলামাদের নেতৃত্বে নরসিংদী রেল স্টেশন চত্বরে সমবেত হয়। সেখান থেকে বিক্ষোভে সংগঠিত হয়ে শহরের বিভিন্ন রাস্তা প্রদক্ষিণ করে তারা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে গিয়ে টঙ্গীর হামলার প্রতিবাদ ও নিন্দা সংবলিত একটি স্মারকলিপি হস্তান্তর করে।এদিকে গত রোববার সন্ধ্যা সাটিরপাড়া হাইস্কুল মাঠে আয়োজিত তানজিমের দুই দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক মহা সম্মেলনের শেষ দিনের সমাবেশ পরিণত হয় বিশাল প্রতিবাদ সভায়। মাঠে উপস্থিত লাখো মুসল্লি জঙ্গি হামলার প্রতিবাদে গগনবিদারী স্লোগানে আকাশ বাতাস প্রকম্পিত করে তোলে। তারা আসাদ বাহিনীর এই বর্বরোচিত হামলা দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবি করে। এই অবস্থায় সমাবেশের সভাপতি হাফেজ মাওলানা শওকত হোসাইন সরকার সমাবেশের পক্ষ থেকে সাত দফা সিদ্ধান্ত, প্রস্তাবনা ও দাবিনামা পাঠ করে শোনান। এসবের মধ্যে রয়েছে- হামলার হুকুমদাতা ওয়াসিফুল ইসলাম, সাহাবুদ্দিন ও নাসিমসহ নেতৃত্বদানকারীদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বিচারের আওতায় আনা, নরসিংদীতে সাদপন্থী সকল কার্যক্রম নিষিদ্ধ করা, শহরের ভেলানগরে তাদের অস্থায়ী কেন্দ্র বন্ধ করা টঙ্গীর হামলায় নিহত আহতদের ক্ষতিপূরণ ও চিকিৎসার ব্যবস্থা করা এবং দীর্ঘ দিন ধরে রাখা বাশাইলের মারকাজ অতিসত্বর ওলামায়ে কেরামের তত্ত্বাবধানে খুলে দেয়া, পূর্ব নির্ধারিত ১৮, ১৯ ও ২০ তারিখে বিশ্ব ইজতেমার আয়োজনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা। এ ছাড়া সমাবেশের পক্ষ থেকে নরসিংদী জেলার সাদপন্থী তাবলীগের আমীর মীর মহসিন, আমিনুল হক ভুইয়া ও আব্দুল মান্নান মাস্টারকে জেলার সকল স্থানে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়। এখন থেকে নরসিংদী বাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে প্রতি বৃহস্পতিবার অস্থায়ীভাবে তাবলীগের শবগুজারি অনুষ্ঠিত হবে বলে ঘোষণা করা হয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।