মাঝরাতেও আলোকিত পদ্মারপাড় মাওয়া ফেরিঘাট

মমিনুল ইসলামঃ বরিশাল বিভাগে বা পার্শবতী জেলায় ভ্রমন করতে হলে অবশ্যই মাওয়া হয়ে পদ্মা নদী পার হতে হবে। আর সেই পদ্মা নদী পার হওয়ার জন্য রয়েছে বিভিন্ন ধরনের ব্যবস্থা। কেউ কেউ পার হয় ফেরি করে আবার কেউ কেউ পার হয় ওয়াটার বাস বা স্পীড বোট এ করে। যে যেভাবেই পার হোকনা কেনো তাদেরকে পারি জমাতে হয় মাওয়া পদ্মার পাড়ে। আবহাওয়া বা নদীর ভয়াবহ দূর্যোগের কারনে অনেক সময় জলবাহন বন্ধ বা আসতে দেরি করে। অপেক্ষারত যাত্রীদের জন্য রয়েছে বিভিন্ন বাঙালী খাবারের ব্যবস্থা। দিনে কিংবা মাঝ রাতেও পাওয়া যাচ্ছে খিচুড়ি সহ সাদা ভাত। এবং সেই সাথে ইলিশ মাছ, ডিম ভুনা, বিভিন্ন প্রকার ভর্তা সহ গরু, খাসি, মুরগির মাংসের ব্যবস্থা। সেখানে আরো পাওয়া যায় পরটা রুটি সহ বিভিন্ন প্রকার ভাজি।
শুধু তাই না যারা চা অথবা সিগারেট পান করে তাদের জন্য সারা রাত খোলা রয়েছে চায়ের দোকান গুলো। আরও রয়েছে পুষ্টিকর বিভিন্ন প্রকার ফলের সমাহার।
সব কিছু মিলিয়ে মাঝ রাতেও মাওয়া ফেরিঘাট হয়ে ওঠে আলোকিত। সেই আলোকিত মনোরম পরিবেশ উপভোগ করতে সেখানে ছুটে আসে দূর দূরান্ত থেকে ভ্রমন পিপাসু মানুষেরা।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।