পাবনায় দুই হাজারের বেশি মানুষ হারপিস সিমপ্লেক্সে আক্রান

পাবনায় দুই হাজারের বেশি মানুষ হারপিস সিমপ্লেক্সে আক্রান

রিপোর্টার: মোঃ সবুজ হোসেন:

পাবনা জেলায় চোখের ভাইরাস জনিত (হারপিস সিমপ্লেক্স) রোগ ব্যাপকহারে বৃদ্ধি পেয়েছে। এ পর্যন্ত ঐ রোগে দুই সহস্রাধিক মানুষ আক্রান্ত হয়েছে। শিশু থেকে সব ধরনের মানুষ এ রোগের শিকার হচ্ছে। প্রথমিক পর্যায়ে রোগটির প্রকোপ কম থাকলেও বর্তমানে তা বৃদ্ধি পাচ্ছে। হাসপাতালে আক্রান্ত রোগীদের ভীড় বাড়ছে।

দরিদ্র ও হত দরিদ্র মানুষ হাসপাতাল ও উপজেলা কমপ্লেক্সে চিকিৎসা সেবা নিচ্ছে। বিত্তবান ও মধ্যবিত্তবান শ্রেনীর মানুষ ক্লিনিক ও প্রাইভেটভাবে চিকিৎসা সেবা নিচ্ছেন।

এ রোগে আক্রান্ত শারিফা আলম সিমু জানান, প্রথমে চোখে ব্যাথা অনুভব হতে থাকে। পরে চোখের ভেতর ফুলতে থাকে। চোখ ফুলে গিয়ে লাল হয় এবং চোখের ভেতর চুলকাতে থাকে। দৃষ্টি শক্তি দূর্বল হয়ে পরে। দুই থেকে তিন সপ্তাহ পর্যন্ত এ রোগ স্থায়ী হয়ে থাকে।

এ ব্যাপারে পাবনা জেনারেল হাসপাতালের কনস্যালটেন্ট ও চ্ক্ষু বিশেষজ্ঞ ডা. এনামুল হক বলেন, হারপিক সিমপ্লেক্সে একটি ভাইরাস জনিত রোগ। আবহাওয়া পরিবর্তনের কারনে এ রোগে আক্রান্ত হয় মানুষ। এরই মধ্যে পাবনা জেনারেল হাসপাতাল ছাড়াও জেলার বিভিন্ন উপজেলা কমপ্লেক্সে এ রােগে আক্রান্ত দুই সহস্রাধিক মানুষের চিৎিকসা প্রদান করা হয়েছে। আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সেবার পাশাপাশি পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

ডা. হক আরো জানান, এ রোগে আক্রান্ত রোগীদের ভয়ের কোন কারন নেই। রোগে আক্রান্ন হবার সাথে সাথে চিকিৎসকের পরামর্শ ও চিকিৎসা পত্র নেয়া দরকার। আক্রান্ত রোগীদের চোখের ভেতর পানির ঝাপটা না নিতে, চোখ না চুলকাতে পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। আক্রান্ত ব্যাক্তিকে দ্রুত চিকিৎসা নেবার পরামর্শ দেন তিনি। চিকিৎসা না নিলে চোখের মনি ঘোলাটে হবার সম্ভাবনা রয়েছে। এতে দৃষ্টি শক্তি হ্রাস পাবার সম্ভবনা রয়েছে বলেও জানান তিনি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।